বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল, ২০২০ ইং, ২৬ চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
আজ বৃহস্পতিবার | ৯ এপ্রিল, ২০২০ ইং

শরীয়তপুরে করোনার আতঙ্ক: উচ্চমূল্যে বিক্রি করায় ৮ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

শনিবার, ২১ মার্চ ২০২০ | ৮:১৩ পূর্বাহ্ণ | 26 বার

শরীয়তপুরে করোনার আতঙ্ক: উচ্চমূল্যে বিক্রি করায় ৮ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

শরীয়তপুরে হিড়িক পড়েছে প্রতিটি বাজারে। বিক্রেতার চাইতে বেশী বিদিক দেখা যায় অতি সচেতন লোকদের মধ্যে। সরকারের লগআউট সহ বিভিন্ন নির্দেশনার কারণে বাজারে বেড়েছে ক্রেতার ভীড়।
আর এই সুযোগে ব্যবসা নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশী দামে করছে প্রতিটি খাদ্যদ্রব্য।

বাজার ঘুরে দৈনিক অধিকারের অনুসন্ধানে দেখা যায়, অনেক ভদ্রলোক ২/৩ বস্তা করে চাল সংগ্রহ করছে। শুধু চাল নয়, ডাল, লবণ, তৈল, মসল্লা বেশী বেশী নিয়ে বাড়ি মজুদ করছে।  প্রায় সব ক্রেতাদের একই উত্তর, করোনা ভাইরাসের জন্য সরকার যে করাকরি পদক্ষেপ নিয়েছেন। তাতে ঘর থেকে বেড় হওয়ায় ঝুঁকি। তারপর শুনছি চাল, ডাল সহ সব জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাবে। তাই আগে থেকে কিনে রাখছি।

আর অধিকাংশ ব্যবসায়ী বলছে, হঠাৎ করে ক্রেতাদের ভিড় বেড়ে যাওয়ায় এবং সব ক্রেতারা বেশী মালামাল নেয়াতে দোকানে মাল কমে গেছে। এখন নতুন করে কিনতে গেলে বেশী দামে কিনতে হচ্ছে। তাই বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। ব্যবসায়ীদের ভেতর কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ক্রেতাদের এই দূর্বলতার সুযোগে বেশী লাভ করছে।

এদিকে প্রতিটি ৬ট উপজেলা প্রশাসন থেকে হাট বাজারে ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়কেই সচেতন হওয়ার আহবান জানানো হচ্ছে। সেই সাথে বাজারে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের নিমিত্ত নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘোষনা দেয়া হয়েছে, সকল নিত্য পন্যের দোকানে বাধ্যতামূলকভাবে মূল্য তালিকা টানিয়ে রাখতে হবে।চালের বস্তা খুললে চালের উপরে কাগজে দাম লিখে রাখতে হবে।
মোবাইল কোর্টের অভিযান চলমান,কেউ নির্দেশনা না মানলে জেল হবে। অামরা চাই না এই সময়ে কেউ জেলে যাক কিন্তু সাধারণ মানুষের স্বার্থে সর্বোচ্চ কঠোর হতে হবে।

আর ক্রেতাদের পরামর্শ; অতিরিক্ত পন্য কিনবেন না,কেউ দাম বেশি নিলে তাকে মোবাইল কোর্টের ভয় দেখান,কথা না শুনলে ভিডিও করে রাখবেন এবং একটা শেষ সুযোগ দিবেন দাম কমানোর জন্য। এরপরও কথা না শুনলে অামাদের ইনবক্সে জানাবেন। হয়ত একটু সময় লাগবে কিন্তু ঠিকই কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।অাপনি অামি সকলে সচেতন হলে,গঠনমূলক হলে এই অবস্থার মোকাবিলা করা সহজ হবে।

এদিকে ২০ মার্চ শুক্রবার প্রবাসী অধ্যুষিত শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলায় করোনা আতংকে বেড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পন্যের চাহিদা। এসব পন্য ক্রয়ের জন্য দোকানে ভিড় করছে সাধারণ মানুষ। আর এই সুযোগে চাল ডাল পিয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পন্যের অতিরিক্ত দর হাকাচ্ছেন কিছু অসাধু ব্যবসায়ী।

এমন পরিস্থিতিতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এর শরীয়তপুর জেলা কার্যালয়। নড়িয়া উপজেলার ভোজেস্বর, নড়িয়া, ঘড়িষার ও চাকধ বাজারে। অভিযানে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন অপরাধে ৮ ব্যবসায়ীকে মোট ১৬’ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

মধ্যে ভোজেশ্বর বাজারের মেসার্স মাহবুব স্টোর ও মেসার্স দিলিপ স্টোর কে দুই হাজার করে মোট চার হাজার টাকা, নড়িয়া বাজারের মেসার্স মোসলেম স্টোর কে এক হাজার টাকা, ঘড়িষার বাজারের মেসার্স রাসেল এন্টারপ্রাইজকে পাঁচ হাজার, মেসার্স আলী স্টোর কে দুই হাজার, চাকধ বাজারের মেসার্স রায়হান স্টোর কে এক হাজার, মেসার্স শ্যামল স্টোর কে এক হাজার এবং মেসার্স রণজিৎ স্টোর কে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি দ্রব্যমূল্য নিয়ে কারসাজি করলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে মর্মে সতর্ক করা হয়েছে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এর সহকারী পরিচালক সুজন কাজীর নেতৃত্বে পরিচালিত এই অভিযানে উপস্থিত ছিলেন, ক্যাব-শরীয়তপুরের সভাপতি বিল্লাল হোসেন খান ও জেলা পুলিশ এর একটি টিম।

সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন
Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedInPrint this page

মন্তব্য

comments


সর্বশেষ  
জনপ্রিয়