সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০ ইং, ১১ কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
আজ সোমবার | ২৬ অক্টোবর, ২০২০ ইং

মা ইলিশ রক্ষায় সর্বাত্মকভাবে প্রস্তুত শরীয়তপুর

বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর ২০২০ | ১০:২২ পূর্বাহ্ণ | 27 বার

মা ইলিশ রক্ষায় সর্বাত্মকভাবে প্রস্তুত শরীয়তপুর

চলতি বছর ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমকে সামনে রেখে ১৪ অক্টোবর বুধবার থেকে আগামী ৪ নভেম্বর বুধবার পর্যন্ত ২২ দিন মেয়াদে ইলিশ প্রজনন ক্ষেত্রে ইলিশ সহ সকল ধরনের মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধ করেছে সরকার। এ সময় দেশব্যাপী ইলিশ আহরণ, বিপণন, পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয়, বিনিময় এবং মজুদ করাও নিষিদ্ধ থাকবে। এরই ধারাবাহিকতায় শরীয়তপুর জেলার ইলিশের প্রধান প্রজনন কেন্দ্র হিসেবে পরিগণিত জাজিরা উপজেলার পশ্চিম নাওডোবা থেকে গোসাইরহাট উপজেলার খুনের চর পর্যন্ত পদ্মা ও মেঘনার ৬০ কিলোমিটার এলাকার মা ইলিশ সংরক্ষণে সারা জেলাব্যাপী বিস্তারিত কর্ম-পরিকল্পনা ইতোমধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে। তদানুযায়ি জেলা পর্যায়ে জেলা প্রশাসক এর সভাপতিত্বে ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন সংক্রান্ত জেলা টাস্কফোর্স কমিটির সভা গত ১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার এবং উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সভাপতিত্বে ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন সংক্রান্ত উপজেলা টাস্কফোর্স কমিটির এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন সংক্রান্ত ইউনিয়ন টাস্কফোর্স কমিটির সভা ইতোমধ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

তাছাড়া সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমে শরীয়তপুর জেলায় ইলিশ আহরণ, পরিবহণ, বিপণন, ক্রয়-বিক্রয়, মজুত ও বিনিময় নিষিদ্ধকরণ বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে নদ-নদী, হাট-বাজার, জেলে পল্লী ও জেলে অধ্যুষিত এলকাসহ গুরুত্বপূর্ণ সকল এলাকায় লিফলেট বিতরণ, ব্যানার ও বিলবোর্ড স্থাপন, মাইকিং, সচেতনতামূলক সভার আয়োজন ও আলোচনা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান শুরুর পূর্বে শরীয়তপুর জেলার তালিকাভূক্ত জেলেদের ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় খাদ্য শস্য বিতরণের জন্য মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয় হতে ১৯ হাজার জেলে পরিবারের জন্য পরিবার প্রতি ২০ কেজি হারে ৩৮০ মে: ট: চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে, যা বিনামূল্যে বিতরণের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান-২০২০ বাস্তবায়নকালে ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহণ, মজুদ, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করার লক্ষ্যে শরীয়তপুর জেলার সকল উপজেলার নদ-নদী, মাছ বাজার, মৎস্য আড়ৎসহ ইলিশ আহরণ ও পরিবহনের সাথে জড়িত সকল স্থাপনায় প্রয়োজনীয় মোবাইল কোর্ট ও অভিযান পরিচালনার বিষয়ে প্রয়োজনীয় সকল প্রস্তুতি ইতোমধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে। সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য স্থানীয় ক্যাবল অপারেটরগণের মাধ্যমে স্ক্রল আকারে প্রচারের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

তাছাড়া ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন সংক্রান্ত জেলা টাস্কফোর্স কমিটির গত ১ অক্টোবর তারিখে অনুষ্ঠিত সভায় শরীয়তপুর জেলার সকল গুরুত্বপূর্ণ স্থানের অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প, তল্লাশি চৌকি (চেকপোস্ট) স্থাপন সহ সকল বরফকল ১৪ অক্টোবর হতে আগামী ৪ নভেম্বর পর্যন্ত বন্ধ রাখার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় পুলিশ সুপার, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক, আনসার ও ভিডিপির জেলা কমান্ড্যান্ট, সকল উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা মৎস্য কর্মকর্তাসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও বিভিন্ন মৎস্যজীবিগণ উপস্থিত ছিলেন।

ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন সংক্রান্ত জেলা টাস্কফোর্স কমিটির সভাপতি ও শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ ক্রয়কারি ও পরিবহনের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে আইনের আওতায় আনার ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করে বলেন, মা ইলিশ আহরণ হতে শুরু করে বিক্রয় পর্যন্ত সব ধরনের অবৈধ কর্মকান্ডকে প্রতিহত করতে হবে, যাতে করে ইলিশ উৎপাদনে বিগত বছরের সকল রেকর্ড আমরা অতিক্রম করতে পারি; দেশের মানুষের আমিষের চাহিদা মেটানোর ক্ষেত্রে যা হবে এক মাইলফলক। তিনি সরকারের এই কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত সরকারি, বেসরকারি সকল দপ্তর, জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজ, সংবাদকর্মী, স্থানীয় সকল জেলেসহ সমাজের সর্বস্তরের সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন
Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedInPrint this page

মন্তব্য

comments


সর্বশেষ  
জনপ্রিয়