বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০২০ ইং, ১৪ কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
আজ বৃহস্পতিবার | ২৯ অক্টোবর, ২০২০ ইং

সাংবাদিকদের সাথে শরীয়তপুর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা

শুক্রবার, ০২ অক্টোবর ২০২০ | ১১:৫০ পূর্বাহ্ণ | 31 বার

সাংবাদিকদের সাথে শরীয়তপুর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা

শরীয়তপুরে বিভিন্ন মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আগামী ৪ অক্টোবর থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন সফল ভাবে সম্পন্ন করতে সিভিল সার্জন অফিস এই ওরিয়েন্টেশন কর্মশালার আয়োজন করেন। বৃহস্পতিবার ১লা অক্টোবর দুপুর ১২ টার দিকে সিভিল সার্জনের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল্লাহ আল মুরাদ।

ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন বাস্তবায়ন করবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের জাতীয় পুষ্টিসেবা জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান এ ভিটামিন ‘এ’ ক্যাম্পেইন সফল ভাবে সম্পন্ন করতে সার্বিক সহায়তা করবেন।

ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা থেকে জানা গেছে, ১ হাজার ১৭৪ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের জেলায় ৬টি উপজেলা, ৬টি পৌরসভা ও ৬৭টি ইউনিয়ন রয়েছে। ১৩ লাখ ৫১ হাজার ৯২ জন লোকের বসবাস এই জেলায়। এর মধ্যে শূণ্য থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুর সংখ্যা ৩১ হাজার ৭৮২ জন, শূন্য থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুর সংস্যা ১ লাখ ৭২ হাজার ৮১৬ জন, ৬-১১ মাস বয়সী শিশুর লক্ষ্যমাত্রা(ভিটামিন ‘এ’ ক্যাম্পেইন) ১৯ হাজার ৪৭৪ জন এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুর সংখ্যা ১ লাখ ৪৩ হাজার ৬৮৮ জন। ৬ মাস থেকে ৫ বছর বয়সী মোট শিশুদের সংখ্যা ১ লাখ ৬৩ হাজার ১৬২ জন। পাওয়ার সম্পন্ন নীল রঙের ও ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুদের ২ লাখ পাওয়ার সম্পন্ন লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ান হবে। এই ক্যাম্পেইন বাস্তবায়নের জন্য জেলায় ১ হাজার ৬১৯টি টিকা কেন্দ্র, ২৫৬ জন স্বাস্থ্য সহকারি, ১৩৭টি কমিউনিটি ক্লিনিক, ১৩০ জন সিএইচসিপি ও ৩ হাজার ২৫৬ জন স্বেচ্ছাসেবক রাখা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন টিকা কেন্দ্র করে ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে।

ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা থেকে সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল্লাহ আল-মুরাদ বলেন, ৫ বছরের বেশী বয়সী মানুষ স্বাভাবিক খাবার খেলে শরীরে ভিটামিন ‘এ’ উৎপন্ন হয়। এর কম বয়সী শিুশুদের রাতকানা রোগ প্রতিরোধের জন্য এই ভিটামিন ‘এ’ দেয়া হয়। এর পাশাপাশি শিশুকে মায়ের দুধ ও স্বাভাবিক খাবার দিতে হবে। ভিটামিন ‘এ’র কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নাই। অনেক সময় এসিডিটির কারনে শিশুর বমিবমি ভাব হতে পারে। এই জন্য ভয়ের কোন কারণ নাই। প্রতিটি শিশু যেন নির্ধারিত দিনের নির্ধারিত সময় ভিটামিন ‘এ’ ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহন করতে পারে সাংবাদিকদের লেখনির মাধ্যমে সেই বিষয়টি নিশ্চিত করতে আহবান জানান সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল্লাহ আল-মুরাদ।

এ ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা ভিটামিন ‘এ’ ক্যাম্পেইন বিষয়ে ভিডিও উপস্থাপন করেন ডা. শাহিনুর নাজিয়া। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ডা. এস. এম. মাসুদ হাসান।

ওরিয়েন্টেশন কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন, জেলা ইপিআই সুপারিন্ডেন্ট মোজাম্মেল হকসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন
Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedInPrint this page

মন্তব্য

comments


সর্বশেষ  
জনপ্রিয়