শরীয়তপুরে গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে দুধর্ষ ডাকাতি

শরীয়তপুর সদর পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের দাসার্ত্তা গ্রামের মালেক মোল্লার বাড়িতে শিশুদের গলায় দেশীয় ধারালো অস্ত্র ঠেকিয়ে দুধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। রোববার দিবাগত রাত ১টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত এই ডাকাতির ঘটনা ঘটে।
এ সময় ডাকাতরা অস্ত্রের মুখে বাড়ির শিশুসহ সকলকে জিম্মি করে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, মোবাইল সেট ও ট্যাব লুট করে নিয়ে গেছে বলে দাবি করেছে ভুক্তভোগী পরিবার।
ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসী জানায়, ১৫-১৭ জন ডাকাতের একটি দল রোববার রাত ১টার দিকে সামনের দরজা বেঙ্গে মৃত মালেক মোল্লার ছেলে প্রবাসী মিন্টু মোল্লার ঘরে প্রবেশ করে। পরে তার ভাই সেন্টু মোল্লার ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঢুকে বাড়ির লোকজনের চিৎকার ঠেকাতে ডাকাতরা শিশুদের গলায় ধারালো অস্ত্র ধরে দুই ঘন্টা লুট করে।
এরপর ঘরের সবকিছু তছনছ করে ৩টি মোবাইল সেট, ২টি ট্যাব, নগত ৩০ হাজার টাকা ও ১২ ভরি স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে যায় ডাকাতি করে।
সেন্টু মোল্লার ৮ বছরের মেয়ে সিনথিয়া জানায়, ডাকাতরা আসলে চিৎকার শুনে ঘুম থেকে উঠলে ডাকাতরা সিনথিয়ার মুখ চেপে ধরে। আর গলায় দেশীয় অস্ত্র ধরে বলে, চুপ করে থাক।
সেন্টু মোল্লার স্ত্রী রুবিনা আক্তার বলেন, আমার স্বামী বিদেশে থাকেন। আমি, শাশুরি ও সন্তানরা বাড়িতে থাকি। গতকাল রাতে হঠাৎ একটি শব্দ হয়। পরে দেখি আমাদের ঘরের ভিতরে ১২ থেকে ১৫ জন লোক। ওরা আমার মেয়ের গলায় অস্ত্র ধরে বলে কথা বলবি না তোর মেয়েকে মেরে ফেলবো। তখন ভয়ে আমি আলমারির চাবি দিয়ে দেই। আমার শাশুরি চিৎকার করলে তাকে মারধর করে। ডাকাতরা সাড়ে ৫ ভরি স্বর্ণ, ১৫ হাজার টাকা, ২টি মোবাইল ও ১টি ট্যাব নিয়ে যায়।
মিন্টু মোল্লার স্ত্রী কহিনুর আক্তার বলেন, ঘরে ঢুকে আমার ছোট বাবুটির গলায় অস্ত্র ধরেছে ডাকাতরা। আমি বলি বাবুকে ছেড়ে দেন। ঘরে যা আছে নিয়ে যান। তখন ১টি মোবাইল, একটি ট্যাব ও ৬-৭ ভরি স্বর্ণ ছিল নিয়ে গেছে। তবে ডাকাতদের প্রত্যেকের হাতে টস লাইট ও অস্ত্র ছিল।
পালং মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, পালং থানাধীন দাসার্ত্তা গ্রামের মালেক মোল্লার বাড়িতে গত রাতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ওই রাতে বাড়িতে নারী আর শিশুরা ছিল, পুরুষ ছিলনা। ওই বাড়িতে সোমবার সকালে শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল মামুন শিকদার স্যার ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) কামরুল হাসান স্যারে পরিদর্শণ করেছেন।
তিনি বলেন, ডাকাতরা ঘরে ঢুকে ২৫-৩০ হাজার টাকা, তিনটি মোবাইল, দুইটি ট্যাব ও স্বর্ণালংকার নিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে থানায় এখনো মামলা হয়নি। তবে ডাকাতির খবর পেয়েই পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন
Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedInPrint this page

মন্তব্য

comments