আজ বৃহস্পতিবার | ২২ আগস্ট, ২০১৯ ইং
| ৭ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৯ জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী | সময় : রাত ৩:০৬

মেনু

অবিলম্বে সাংবাদিক নিপিড়নকারী ৩২ ধারা বাতিল না হলে দেশব্যাপী আন্দোলন- বিএমএসএফ’র হুশিয়ারি

অবিলম্বে সাংবাদিক নিপিড়নকারী ৩২ ধারা বাতিল না হলে দেশব্যাপী আন্দোলন- বিএমএসএফ’র হুশিয়ারি

রবিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
৭:৫৫ অপরাহ্ণ
515 বার

শরীয়তপুর প্রতিনিধি॥ প্রস্তাবিত ৩২ ধারা ৫৭ ধারার চেয়ে সাংবাদিকদের জন্য ভয়াবহ ও অনিরাপদ। অবিলম্বে সরকারকে এই কালো আইনটি বাতিলের দাবী জানিয়েছে বিএমএসএফ। আইনটি অবিলম্বে বাতিল করা না হলে দেশব্যাপী কঠোর আন্দোলনেরও হুশিয়ারি দেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি শহীদুল ইসলাম পাইলট।

চলতি সপ্তাহের মধ্যে সাংবাদিক নিপিড়নকারী এ আইনটি বাতিল কিংবা সংশোধন করা না হলে আগামী রোববার ১১ ফেব্রুয়ারী দেশব্যাপী সংগঠনের ব্যানারে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন শেষে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদানের ঘোষণা দেয়া হয়।

রোববার সকাল ১১টায় শরীয়তপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) জেলা শাখার আয়োজনে দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন’র সম্পাদক নঈম নিজাম, বিশিষ্ট সাংবাদিক আনিস আলমগীর ও শ্যামল দত্তকে মামলায় হয়রাণী, বিএমএসএফ লালমনিরহাট জেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদকের ওপর সন্ত্রাসী হামলাসহ সারাদেশে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলায় হয়রাণী ও প্রস্তাবিত ৩২ ধারা বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএমএসএফ কেন্দ্রীয় সভাপতি শহীদুল ইসলাম পাইলট।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারার চেয়ে ভয়াবহ। ১৯টি ধারার মধ্যে মাত্র ৪টি জামিনযোগ্য। বাকিগুলো জামিন অযোগ্য। সাংবাদিকদের জন্য এ ধারাটি অনিরাপদ। আইনটি প্রস্তবনায় সাংবাদিক নেতাদের সাথে কোনরুপ আলোচনা কিংবা মতামতকে অগ্রাহ্য করা হয়েছে।

৫৭ ধারায় মামলা করতে মন্ত্রনালয়ের অনুমতি লাগতো। নতুন এ আইনটি দ্বারা পুলিশ মামলা ছাড়াই যে কাউকে গ্রেফতার করতে পারবে। যা দেশের গণতন্ত্র উন্নয়নের অন্তরায় বলেও দাবী করা হয়।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বিএমএসএফ শরীয়তপুর জেলা কমিটির আহবায়ক আব্দুল ওয়াদুদ মিয়া। বক্তব্য রাখেন আরটিভি জেলা প্রতিনিধি আবুল হোসেন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল শরীয়তপুর জেলার সভাপতি শফিকুল ইসলাম স্বপন সরকার ও সংগঠনের সদস্য সচিব ছগির হোসেন প্রমুখ।

এ সময় বিটিভি ও সময়টিভি’র শরীয়তপুর প্রতিনিধি মফিজুর রহমান রিপন, চ্যানেল আই’র প্রতিনিধি এসএম মজিবর রহমান, ডিবিসি’র প্রতিনিধি বিএম ইশ্রাফিল, মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের প্রতিনিধি কবির উজ্জামান, এশিয়ান টিভির প্রতিনিধি এমবি কাজী নাসির, মানবজমিন নড়িয়া প্রতিনিধি আলমগীর হোসেন আলম, দৈনিক বজ্রশক্তির প্রতিনিধি আসাদ মল্লিক, শেখ জামাল, জেটিভি’র প্রতিনিধি রুপক চক্রবর্তী, চ্যানেল এস প্রতিনিধি রাজিব হোসেন রাজন, বাংলা নিউজের প্রতিনিধি বেলাল আহম্মেদ, সাপ্তাহিক আজকের শরীয়তপুরের সম্পাদক টিএম গোলাম মোস্তফা, অপরাধ বার্তা ও আনন্দবাজার প্রতিনিধি মো. মহসিন রেজা, ক্রাইমভিশনের প্রতিনিধি নাছির আহম্মেদ, দৈনিক ঢাকার ডাক প্রতিনিধি আব্দুর রশিদ সরদার, দৈনিক রুদ্রবার্তার প্রতিনিধি আনিছুর রহমান, শেখ নজরুল ইসলাম, পাভেল শিকদার, আমাদের কন্ঠের প্রতিনিধি সোহাগ খান সুজন, দৈনিক ভোরের সূর্য প্রতিনিধি আব্দুল বারেক ভূইয়া, দৈনিক ঘোষণা প্রতিনিধি শাহাদাৎ হোসেন হিরো, সংলাপ৭১ডট কম প্রতিনিধি মো. নাসির খান, মানবাধিকার প্রতিনিধি বাবু সিকদার, সময়নিউজের প্রতিনিধি সমীর চন্দ্র শীল, কল ফর বার্ডর আসিক রেহান, জামাল মাদবর, পলাশ খান, তুষার আহম্মদ, হৃদয় পালোয়ান সাইফুল ইসলাম, সজিব মন্ডল, মো. শাকিল খান, রাশেদ, শাহবুদ্দিন প্রমূখ নেতৃবৃন্দ দাবীর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেন।
সমাবেশে বিএমএসএফ’র পক্ষ থেকে বিশিষ্ট সাংবাদিক নঈম নিজাম, আনিস আলমগীর, শ্যামল দত্ত’র বিরুদ্ধে আনীত মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবী করা হয়। এছাড়া সরকার চলতি সপ্তাহের মধ্যে ৩২ ধারা বাতিল এবং ৫৭ ধারায় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া সকল মামলা প্রত্যাহার করা না হলে আগামি ১১ ফেব্রুয়ারি দেশব্যাপী সাংবাদিক সমাবেশ ও প্রধানমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি পাঠানোর প্রস্তুতি গ্রহনের আহবান জানানো হয়েছে।

সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন
Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedInPrint this page

মন্তব্য

comments